সবুজ পাহাড়ের প্রেমে ভ্রমণ পিপাষুরা বান্দরবানে

এম.এ.এইচ রাব্বী, বান্দরবান ফিরে: 

সবুজ পাহাড়ে ঘেরা প্রকৃতির অপার সৌন্দর্যের শহর বান্দরবান। তাই ভ্রমণ পিপাসুরা ছুটে আসেন পাহাড়ের সৌন্দর্য উপভোগ করতে। যেখানে প্রকৃতি নিজ ঐশ্বর্যকে ঢেলে দিতে কৃপণতা করেন নি। বান্দরবানের পর্যটন কেন্দ্র নীলাচল অার নীলগীরির মেঘ যেন পর্যটকদের হাতছানি দিয়ে ডাকে। পাহাড়ি এ জেলায় রয়েছে অসংখ্য হ্রদ, ঝরনা, ও নদী। দেশের বিভিন্ন প্রান্তের দর্শনার্থীদের পদচারনা এখন সবুজ পাহাড় ঘিরে। কাছে বা দূরের সবুজ পাহাড় আর মেঘের আনাগোনা পর্যটক আকর্ষণের মূল অনুষঙ্গ।

ছবি: এম.এ.এইচ রাব্বী।

ঈদের ছুটি শেষ হয়ে গেলেও পর্যটকদের ভিড়ে মুখরিত রয়েছে বান্দরবানের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে। শিশু-বৃদ্ধ-তরুণ-তরুণীরা তাদের প্রিয়জনদের নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন দর্শনীয় সব স্থানে। দিনটিকে স্মৃতিময় করে রাখতে অাবদ্ধ হচ্ছেন ছবির ফ্রেমে অাবার কেউ কেউ প্রিয়জনদের সাথে তুলছেন সেলফি।

নীলাচল পর্যটন কেন্দ্রের প্রধান ফটকে পর্যটকের ভীড়। ছবি: প্রতিনিধি

বান্দরবান শহরের কাছে সবুজ পাহাড়ের চূড়ায় মেঘের কাছাকাছি আকর্ষণীয় বিনোদন কেন্দ্র নীলাচল। শহর থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরে সমুদ্রপৃষ্ট থেকে ১৬শ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত এটি। পাহাড় আর মেঘের অপূর্ব মিতালি দেখা যায় এখান থেকেই। দেখা যায় সবুজ পাহাড়ে মোড়ানো পুরো বান্দরবান। ঘন সবুজ বন। মেঘে ঢাকা আকাশ। দুই পাহাড়ের কোল ঘেষে চলা সরু রাস্তা। মিশে গেছে আকাশের সঙ্গে। পার্বত্য অঞ্চল বান্দরবানে এমন পর্যটন অপরূপ সৌন্দর্য হাতছানি দেয়। তাইতো বছরের যেকোন সময় সৌন্দর্য্য পিপাসুদের ভিড় জমে উঠে পর্যটন কেন্দ্র নিলাচলে। মুহুর্তেই মন প্রাণ ভরে উঠে মুগ্ধতায়। বিশেষ করে নীলাচলে সূর্যাস্তের দৃশ্য ভ্রমণ পিয়াসুদের মনে আনে স্বর্গীয় অনুভূতি। পাহাড়ের প্রকৃতি ঠিক রেখে এর ভাঁজে ভাঁজে সাজানো হয়েছে কেন্দ্রটি। তাই ভ্রমণ পিপাষুদের পদচারণায় মুখর থাকে এ বিনোদন স্পটে।

পর্যটক মুহাম্মদ নায়েব অাওলাদ হাসান বলেন, সবুজ পাহাড়ের প্রেমে পড়ে বান্দরবান দেখতে এসেছি। বরাবরের মতই পাহাড়, জঙ্গল আমার কাছে অনেক প্রিয়। অনেক সুন্দর এই জায়গা। অনেকে ভালো লেগেছে।

যান্ত্রিক জীবনের নানা কর্মব্যস্ততার ফাঁকে কিছুটা প্রশান্তি পেতে পাহাড়ি জেলা বান্দরবানে ছুটে অাসেন নানা শ্রেণী পেশার মানুষ। নিরাপত্তার জন্য দর্শনার্থীরা চান প্রশাসনের কঠোর নজরদারী।

মতামত