চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় একই পরিবারের ৬ জন করোনা আক্রান্ত

আবদুল আউয়াল জনি, সিটিজি ভয়েস টিভি:

করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় একই পরিবারের ৬ জনের শরীরে (কোভিড-১৯) করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ পাওয়া গেছে। আক্রান্ত পরিবারটি সাতকানিয়া উপজেলার মাদার্শা ইউনিয়নের রূপনগর এলাকার বাসিন্দা বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি।

রোববার (২৬ এপ্রিল) রাত ১০ টায় গণমাধ্যমকে তিনি এ তথ্য জানিয়েছেন।

লকডাউন অমান্য করে সামাজিক দুরত্ব বজায় না রাখা, অযথা ঘুরাফেরা সহ ধারাবাহিকভাবে অসতর্কতার চড়া মূল্য দিয়ে যাচ্ছে চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলা। ফলে গত ২৪ ঘন্টায় দক্ষিণের এই উপজেলার ৬ জনের শরীরে মিললো করোনাভাইরাস।

সাতকানিয়ায় আক্রান্ত ৬ জনের মধ্যে ৩ জন নারী ও দুই জন কিশোরও রয়েছে। তাদের সকলেই মাদার্শা ইউনিয়নের রূপনগরের বাসিন্দা বলে জানা গেছে। এদের মধ্যে ১৪ ও ১৫ বছর বয়সী দুই কিশোর, ৭৫ বছর বয়সী একজন বৃদ্ধা, ৫৬ বছর বয়সী একজন পুরুষ এবং ৪৫ ও ৩২ বছর বয়সী দুই নারী রয়েছেন।

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও করোনা বিষয়ক সমন্বয় সেলের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমন্বয়ক ডা. আ ম ম মিনহাজুর রহমান বলেন, আজ চট্টগ্রামে সনাক্ত হওয়া একই পরিবারের ৬ জনের বাড়িই সাতকানিয়ার মাদার্শা ইউনিয়নের রুপনগর এলাকার।এই পরিবারের আরো একজন আগে শনাক্ত হয়ে জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তিনি সাতকানিয়ায় সনাক্ত হওয়া প্রথম রোগীর (মৃত্যুর পরে যার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিলো) মেয়ে জামাই হন। এছাড়াও এ রোগীর সংস্পর্শ আসা আরো পাঁচ স্বজনও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এতেই প্রতীয়মান হয় যে, প্রথম সনাক্ত হওয়া রোগীর সংস্পর্শ এসেই বাকি সবাই আক্রান্ত হয়েছেন।সুতরাং সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে দিন যাপনই এ রোগ থেকে বাঁচার অন্যতম উপায়। সরকারী নির্দেশনা না মেনে সংক্রমণের অবারিত দূয়ার খুলে দিয়ে কোভিড-১৯কে ঘরে আমন্ত্রণ জানানোর অপরিনামদর্শী জেহাদ যারা করতে চান তারা কি মানুষ? বাঁচতে হলে সামাজিক দুরত্ব মেনে চলতে হবে, সরকারী নির্দেশনা মেনে ঘরে থাকতে হবে, এর অন্য কোন বিকল্প নেই।

উল্লেখ্য, ২৬শে এপ্রিল চট্টগ্রামে মোট ১০১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যার সবগুলোই ফৌজদারহাটে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসের (বিআইটিআইডি) ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়েছে।

গত ২৬ মার্চ থেকে বিআইটিআইডিতে নমুনা পরীক্ষা শুরু হয়। চট্টগ্রামে এ পর্যন্ত ২ হাজার ৫৪২ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এদের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ৯৪ জনের নমুনায়। তার মধ্যে চট্টগ্রাম জেলার ৫৩ জন। এছাড়া লক্ষ্মীপুরের ৩২ জন, নোয়াখালীর চার জন, বান্দরবানের তিন জন ও ফেনীর দুই জন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। চট্টগ্রামে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত পাঁচ জন মারা গেছেন।

মতামত