কোরআনে হাফেজ হত্যার আসামি পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত

সিটিজি ভয়েস টিভি ডেস্ক:

দক্ষিণ চট্টগ্রামের বাঁশখালীর বাহারছড়া ইউনিয়নের পূর্ব ইলশা গ্রামে দুই কোরআনে হাফেজ হত্যার প্রধান আসামি পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত।

শনিবার (১৬ মে) দিবাগত রাত ৩ টার দিকে মদিনা ব্রিকফিল্ডের সামনে এই ঘটনা ঘটে, বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাঁশখালী থানায় ওসি রেজাউল করিম মজুমদার।

বাঁশখালী থানার ওসি রেজাউল করিম মজুমদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন সেই দুই হাফেজ হত্যার আসামি মদিনা ব্রিকফিল্ডের মালিক নুরুল আবছারের ছোটভাই আনছার প্রকাশ কালু,যিনি দুই হাফেজ হত্যার তিন নাম্বার আসামি হিসেবে জড়িত।

ওসি রেজাউল করিম মজুমদার জানান, রাত ৩ টার দিকে দুই হাফেজ হত্যার কয়েকজন আসামি ব্রিকফিল্ডে অবস্থান করছে খবর পেয়ে আমরা সেখান অভিযান চালাই। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ভেতর থেকে পুলিশকে লক্ষ করে গুলি ছোঁড়া হয়। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এক পর্যায়ে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা পিছু হটলে পুলিশ ঘটনাস্থলে একজনকে পড়ে থাকতে দেখে। পুলিশ উদ্ধার করে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় পুলিশের চার সদস্য আহত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন ওসি রেজাউল করিম মজুমদার।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা জয়নাল আবেদীন ঝন্টুর লোকজনের উপর অতর্কিতে আক্রমণ চালায় মদিনা ব্রিকফিল্ডের মালিক নুরুল আবছারের ভাই আনসার প্রকাশ কালু ও সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।

তারাবির নামাজ পড়িয়ে ফেরার পথে তাদের ছোঁড়া গুলিতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান হাফেজ খালিদ বিন ওয়ালিদ। গুলিবিদ্ধ অপর হাফেজ ইব্রাহিম বুধবার রাতে চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

মতামত