মহিউদ্দিন চৌধুরী জননেতা হয়েছিলেন মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেই: মোশাররফ

সিটিজি ভয়েস টিভি ডেস্ক:

জনগণের জন্য কাজ করতে করতেই জননেতা হয়েছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের প্রয়াত সভাপতি ও সাবেক মেয়র আলহাজ এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ মানুষের অধিকার কিভাবে আদায় করতে হয় তা তিনি জানতেন বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি।

শনিবার (২ ডিসেম্বর) ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টারে নগর যুবলীগ আয়োজিত সাবেক মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই। যুবলীগের মধ্যে কোনো গ্রুপিং চলবে না। যারা গ্রুপিং করবেন, ঐক্য বিনষ্ট করবেন তাদের যুবলীগ করার অধিকার নেই। কোনো ভাইয়ের বা ব্যক্তির নির্দেশে নয়, যুবলীগ চলবে শেখ হাসিনার নির্দেশে। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে যদি কোনো কারণে নৌকা প্রতীক পরাজিত হয়, তাহলে ধরে নেবো এই অঞ্চলের আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ শেখ হাসিনার কর্মী নয়। আপনারা নিজেকে এবং পদকে ভালোবাসেন। শেখ হাসিনাকে ভালোবাসেন না।

দেশে নতুন ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে উল্লেখ করে বলেন, তারেক জিয়া লন্ডনে বসে দেশে অর্থ বিনোয়োগ করছেন। তাই নিজেদের মধ্যে কোন্দল সৃষ্টি না করে ঐক্য গড়ে তুলুন। সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করলে বিএনপি জামায়াত আগামী সিটি নির্বাচনে জয় লাভ করতে পারবে না। আল্লামা শফিকে কি প্রক্রিয়ায় এই পৃথিবী থেকে বিদায় করা হলো তা সবাই জানে। বাবুনগরী, মামুনুল হকের গ্রুপরা সেদিন শাপলা চত্বরে অবস্থান নিয়ে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করতে চেয়েছিলেন। তারা নতুন করে বিএনপি-জামায়াত থেকে অর্থ নিয়ে আবার রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন।

নগর যুবলীগের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চুর সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় আরও বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান এম জহিরুল আলম দোভাষ, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শাহাদাত হোসেন তসলিম, কেন্দ্রীয় যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক বদিউল আলম বদি, নগর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা, ফরিদ মাহমুদ, দিদারুল আলম, মাহবুবুল হক সুমন, দক্ষিণ জেলার আ ম ম টিপু সুলতান, উত্তর জেলার এস এম আল মামুন প্রমুখ।

মতামত