পিঠাপুলি উৎসবে মাতোয়ারা শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা

সিটিজি ভয়েস টিভি ডেস্ক:

চট্টগ্রাম শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে আশ্রয় পাওয়া সমাজের এক সময়কার সুবিধাবঞ্চিত-বিপন্ন-ঝুঁকিতে থাকা-পথ শিশুদের নিয়ে পিঠাপুলি উৎসব, শিশু বরণ, ডিসপ্লে প্রদর্শন, শিক্ষা সহায়ক উপকরণ বিতরণ,বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

মুজিববর্ষে শিশুদের ইংরেজি নববর্ষের আনন্দ ঘনীভূত করতে তিন দিনব্যাপী এই কর্মসূচির উদ্যোগ গ্রহণ করে চট্টগ্রাম শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র।

বুধবার(২০জানুয়ারী) বিকেলে ইংরেজি নববর্ষের মাহেন্দ্রক্ষণে ব্যতিক্রমী উদ্যোগে কেন্দ্রের সুবিধাবঞ্চিত ২০০ জন নিবাসী শিশুদের ফুল দিয়ে বরণ করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হাটহাজারী উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মাদ রুহুল আমীন।

এসময় বিশেষ অতিথি ছিলেন সমাজসেবা কার্যালয়ের কর্মকর্তা মুজাহিদুল ইসলাম, ফরহাদাবাদ প্যানেল চেয়ারম্যান মোঃ আলী আকবর, ইউএনওর সহধর্মিনী ফারজানা শারমিন মৌসুমি ও সমাজসেবা কর্মকর্তার সহধর্মিনী সারজিনা নূর সহ কেন্দ্রের কর্মকর্তা-কর্মচারিবৃন্দ।

অতঃপর কেন্দ্রে নিবাসী শিশুদের ‘বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধ’ ভিত্তিক মনোজ্ঞ “ডিসপ্লে প্রদর্শন” উপভোগ করেন আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ। সন্ধ্যা ছয়টায় কেন্দ্রের মিলনায়তন কক্ষে উপ-প্রকল্প পরিচালক জেসমিন আকতার এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় পর্বের অনুষ্ঠানে শিশুতোষ মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক পরিবেশনা উপস্থিত সকলকে আবেগাপ্লুত করে তোলে। অতঃপর শিশুদের মাঝে শীতবস্ত্র,শিক্ষা সহায়ক উপকরণ ও বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার ৩টি গ্রুপে ৬ টি ইভেন্টের পুরস্কার বিতরণ করেন আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ।একই দিন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ রুহুল আমীন এর সভাপতিত্বে চট্টগ্রাম শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের কেন্দ্র ব্যবস্থাপনা কমিটি’র সভা ও অনুষ্ঠিত হয়।

সবচেয়ে আকর্ষণীয় এবং উপভোগ্য বিষয় ছিল নতুন বছর উপলক্ষে কেন্দ্রের নিবাসী শিশুদের নিয়ে ২৯ রকমের আইটেমের পসরায় জমজমাট পিঠা উৎসবের আয়োজন। কেন্দ্রের উপপ্রকল্প পরিচালক জেসমিন আকতার বলেন- মূলত নতুন বছর উপলক্ষে শীতের মৌসুমে কেন্দ্রের নিবাসী শিশুদের মুখে হাসি ফোঁটানোর জন্য আমাদের এই ছোট্ট প্রয়াস।

সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মিলনমেলায় বার্তা বাহক ঋতুরাজ মাঘের শীতের সময়ের শুভক্ষণে অনিন্দ্য সুন্দর এ পিঠা উৎসবে ঠাঁই পেয়েছে ঐতিহ্যবাহী বাহারী স্বাদের ভাপা পিঠা, আতিক্কা পিঠা, গুরা পিঠা, বিন্নী চালের পাটিসাপটা পিঠা ও ঝোল ভাপা পিঠা,কালাই-রুটি,পাকন পিঠা, সিধল ভর্তা- চিতই পিঠা, গোলাপ শেপি পিঠা, বিস্কুট শেপি পিঠা, সুজির রস বড়া পিঠা, সুজির ফ্রাইজাম পিঠা, নকশি পিঠা, সিরিঞ্জ পিঠা, ফুলঝুরি পিঠা, চুঁই পিঠা, ডিম পেস্ট্রি পিঠা, পানতোয়া পিঠা, পোয়া পিঠা, দুধ-পুলি পিঠা, ঝাল-পুলি পিঠা, ফ্লাওয়ার সমুচা পিঠা, মোমো পিঠা, দুধ-চিতই পিঠা, লবঙ্গ লতিকা পিঠা, ঝিনুক পিঠা, সিল্ক ক্যারামেল পুডিং, বাহারী শেপের চিপস পিঠা, ফিশ ফিঙ্গার পিঠা ইত্যাদি।


উৎসবমুখর পরিবেশে পিঠা ভোজনে শিশুরা সমস্বরে স্লোগান তোলে-
” শীত এলো তাই হিম হিম পড়ছে শিশির ঘাসে,
শীত এলো তাই সূর্যিমামা দেরী করে হাসে।
শীত এলো তাই সবাই মিলে পিঠাপুলি খাই,
উৎসবের আনন্দেতে একসাথে গান গাই।”
– প্রসঙ্গত উল্লেখ্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়াধীন সমাজসেবা অধিদফতর পরিচালিত শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র সমাজের ঝুঁকিতে থাকা শিশুদের মূল স্রোতধারায় ফিরিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

মতামত