পদ্মা পারাপারের সময় বাচ্চা প্রসব, নাম রেখেছেন পদ্মা

সিটিজি ভয়েস টিভি ডেস্ক:

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পদ্মার পাইনপাড়া চরে প্রসূতি জন্ম দিলেন নবজাতক। তাই তার নাম রাখা হয়েছে মারিয়ম আক্তার পদ্মা।

রবিবার সন্ধ্যা ৬টায় জাজিরা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা প্রসূতি মা ও নবজাতককে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছেন। মা ও শিশু উভয়ই সুস্থ রয়েছেন।

জানা যায়, বরিশালের হিজলা উপজেলা পূর্ব শ্রীপুর গ্রামের মো. নাহিদের সাথে বরগুনার আমতলী গ্রামের সুমা আক্তারের বিয়ে হয় দেড় বছর আগে। বিয়ের পরে জীবন জীবিকার তাগিদে ঢাকায় চলে আসেন নব-দম্পতি।

পুরান ঢাকার লালবাগের একটি ছোট ভাড়া বাসায় থাকেন তারা। নাহিদ কাজ করেন একটি স্টিলের কারখানায়। বাচ্চা প্রসবের সম্ভাব্য তারিখ ছিল চলতি মাসের ১১ তারিখ। ছোটো ভাড়া বাসায় শুধু দুজনেই থাকতেন তারা। তাই স্বজনের কাছে নিয়ে যাচ্ছিলেন সন্তানসম্ভবা স্ত্রীকে।

সুমার স্বামী মো. নাহিদ বলেন, আগেই যাওয়ার ইচ্ছা ছিল কিন্তু টাকার অভাবে যেতে পারিনি, ছুটিও ছিল না। এখন টাকা হাতে এসেছে তাই বরগুনা যাচ্ছিলাম। যখন বাসা থেকে বের হয়েছিলাম তখন ফেরি চলছিলো। কিন্তু মাওয়া এসে দেখি সব বন্ধ। পরে অন্যদিক দিয়ে পার হতে ট্রলারে উঠি। ট্রলার চালক জাজিরার মাঝিরঘাটে না নামিয়ে চরে নামিয়ে দেয়।

তিনি বলেন, আমরা হাটা শুরু করার কিছুক্ষণ পরেই স্ত্রী সুমার ব্যথা শুরু হয়। কিন্তু আশেপাশে কোনও বাড়ি পায়নি। দুই ঘণ্টা হাঁটার পর বাড়ি লাগাম পাই। তখন একটি বাড়িতে আশ্রয় নেই এবং ওই বাড়িতেই একটি কন্যা সন্তান জন্ম দেয় সুমা। পরে সরকারি লোকজন এসে হাসপাতালে নিয়া যায়।

জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান বলেন, সাড়ে ৭টার দিকে প্রসূতি ও তার নবজাতককে হাসপাতালে আনা হয়েছে। মায়ের অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে তবে চিকিৎসা চলছে। বর্তমানে মা ও নবজাতক উভয়ই সুস্থ আছেন।

জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, ঘটনাটি শোনার সাথে সাথে চর থেকে প্রসূতি মা ও শিশুকে উদ্ধারে নৌ এ্যাম্বুলেন্স পাঠিয়েছি। পদ্মা পার হওয়ার পর ঘাট থেকে এ্যাম্বুলেন্সে করে আনা হয়েছে। এরপর জাজিরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক ওই কন্যা শিশুটির ডাক নাম দিয়েছেন পদ্মা। আমাদের সার্বিক তত্বাবধানে রয়েছেন মা ও নবজাতক।

মতামত